সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম নিয়ত ও ফজিলত

আমরা অনেকে সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম ও ফজিলত সম্পর্কে জানিনা। কখন সালাতুত তাসবিহ নামাজের সময় এবং কেন সালাতুল তাসবিহ  নামাজ পড়তে হয়। এই পোস্টে বিস্তারিত দেওয়া হয়েছে। এই আর্টিকেল টি মন দিয়ে পড়ুন আপনি সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম ও দোয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) তার আপন চাচা হযরত আব্বাস (রাঃ) কে গুরুত্ব সহকারে বলেছেন যে চাচা এই নামাজ যদি পারেন দৈনিক একবার , না হয় সপ্তাহে একবার, না হয় মাসে একবার, না হয় বছরে একবার, আর না হয় অন্তত জীবনে একবার হলে পড়বেন। এই নামাজ পড়লে জীবনেরসমস্ত গুনাহ মাফ হয়ে যায়।

সালাতুল তাসবিহ কি?

সালাতুল তাজবি হল একটি আরবি শব্দ। (সুবহানাল্লাহি ওয়াল হামদুলিল্লাহি ওয়ালা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার) যে নামাজে বারবার এই দোয়াটি পড়া হয় তাকে সালাতুত তাসবিহ নামাজ বলে।

এয়ারটেল মিনিট চেক

সালাতুল তাসবিহ নামাজের ফজিলত

সালাতুত তাসবিহ নামাজের ফজিলত সম্পর্কে আমাদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তিনি তার চাচা হযরত আব্বাস (রাঃ) বর্ণনা করে শুনান। যখন আপনি তাসবিহ আমল করবেন তখন আল্লাহ তায়ালা আপনার আগের, পরের, পুরাতন, নতুন, ইচ্ছাকৃত ও অনিচ্ছাকৃত গুনাহ, সাগিরা, কাবিরা, গুপ্ত ও প্রকাশ্য, সব প্রকার গুনাহ মাফ করে দিবেন। এবং অসীম সওয়াব পাওয়া যাবে।

সালাতুল তাসবিহ নামাজের সময়

আমরা অনেকেই জানিনা যে কোন সময় সালাতুল তাসবিহ নামাজটি পড়া উত্তম। এই নামাজ যেকোনো সময় পড়া যায় তবে আমাদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ বলেছেন। পবিত্র রমজান মাসেই সালাতুল তাসবিহ এর নামাজ আদায়ের উওম সু্যোগ ও সময়। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ আরো বলেছেন জীবনে একবার হলেও তাসবিহ নামাজ আদায় করতে।

সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম

সালাতুত তাসবিহ নামাজ মোট ৪ রাকাত। এই নামাজ প্রত্যেক রাকাতে ৭৫ বার করে ৪ রাকাতে ৩০০ বার নিছে দেওয়া দোয়া টি পড়তে হবে। 

সালাতুল তাসবিহ নামাজের দোয়াটি হলো:

سبحان الله والحمد لله ولا إله إلا الله والله أكبر

বাংলা উচ্চারণ: সুবহানাল্লাহি ওয়াল হামদুলিল্লাহি ওয়ালা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার।

অর্থঃ আল্লাহ তায়ালার পুত প্রবিত্র, সমস্ত কিছুর প্রশংসা একমাত্র তারই জন্য, তিনি ব্যতীত আর কোনো মা’বুদ নাই। আল্লাহ তায়ালা সর্বোচ মহান। 

এই দোয়াটি কখন কিভাবে পড়বেন বিস্তারিত নিচে দেওয়া আছে। নিয়ম অনুজায় শুদ্ধ করে সালাতুল তাসবিহ নামাজ পড়বেন। এই নামাজ টি পড়লে আপনার জীবনের সমস্ত গুনা মাফ হবে এবং অনেক সওয়াব পাবেন। এই নামাজটি রমজান মাসে পড়ার চেষ্টা করবেন। রমজান মাসে আল্লাহর অশেষ রহমতের মাস এই মাসে সালাতুল তাসবিহ নামাজ নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে মাফ চাইবেন।

বাংলালিংক নাম্বার চেক করার কোড

সালাতুল তাসবিহ নামাজ পড়ার নিয়ম

প্রথমে সালাতুত তাসবিহ নামাজের নিয়ত করার পর আল্লাহু একবার বলে তাহরীমা বাঁধবেন। তারপরঃ

  • সানা পড়ার পর দোয়াটি ১৫ বার পড়বেন।
  • সূরা ফাতিহা ও অন্য সূরা বা কিরআত পড়ার পর রুকুতে যাওয়ার আগে ১০ বার।
  • রুকুর তাজবী পড়ার পর ১০ বার।
  • রুকু হতে সোজা হয়ে দাড়িয়ে ১০ বার।
  • ১ম সিজদার তাজবী পড়ার পর ১০ বার।
  • দুই সিজদার মাজে বসে ১০ বার।
  • ২য় সিজদার তাজবী পড়ার পর ১০ বার পড়বেন।
  • একই নিয়মে প্রতি রাকাতে মোট ৭৫ বার করে ৪ রাকাত নামাজে মোট ৩০০ বার তাজবি টি পড়বেন।  

তবে ২য় রাকাতের পর বসে আত্তাহিয়াতু পড়ার পর সালাম না ফিরিয়ে, ২য় রাকাতের মতো ৩য় এবং ৪থ রাকাত একই ভাবে শেষ করতে হবে। ( আত্তাহিয়াতু পড়ার পর কোন ভাবেই এই দোয়াটি পড়া যাবেনা। )

মুসলিম ছেলেদের আধুনিক নাম

কোনো এক স্থানে তাসবীহ পড়তে ভুলে গেলে বা ভুলে নির্দিষ্ট সংখ্যার চেয়ে কম পড়লে পরবতীতে যেখানে পড়েন নাই সেখানে পড়ে পুড়িয়ে দিবেন। ( যেমনঃ প্রথম রুকুতে তাজবিহ পড়তে ভুলে গেছেন তারপর দ্বিতীয় রাকাতে রুকুতে গিয়ে ২০ বার পড়ে পুড়িয়ে দিবেন। ) তবে ৪ রাকাতে ৩০০ বার পড়তে হবে ৩০০ বার আর কম পড়লে নামাজ পরিপূন্ন হবে না। 

সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ত আরবিতে

সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম
সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ত

বাংলা উচ্চারণ:

নাওয়াইতুয়ান উসাল্লিয়া লিল্লাহি তায়ালা আরবায়া রাকাআতি সালাতিত তাজবিহ সুন্নাত রসূলিল্লাহি তায়ালা মুতাওয়াজিহান ইলাজিয়তিল কা’বাতিস শারিফাতি আল্লাহু আকবার।

বাংলাইয়ঃ

“আমি কেবলা মুখী হইয়া ৪ রাকাত সালাতুল তাসবিহ সুন্নাত নামাজ আদায় করিতেছি আল্লাহহুআকবার” বলে নিয়ত বাঁধবেন। ( সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ত যদি আরবিতে না পারেন তাহলে বাংলায় পড়বেন। )

মহিলাদের সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম

মহিলাদের জন্য সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম একই। তবে আপনারা যেভাবে নামাজ পড়েন সেভাবেই সালাতুত তাজবিহ নামাজ আদায় করবেন। সালাতুত তাজবিহ নামাজে প্রতি রাকাতে ৭৫ বার করে তাজবীহ টি পড়তে হবে। এবং চার রাকাতে ৩০০ বার পড়তে হবে। ৩০০ বারের কম পড়লে নামাজটি পরিপূর্ণ হবে না। সময় নিয়ে নামাজটা পড়বেন এবং সহি শুদ্ধ ভাবে পড়ার চেষ্টা করবেন। তবে আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ বলেছেন সালাতুত তসবিহ নামাজ রমজান মাসে পড়লে বেশি বেশি চাওয়াব পাওয়া যায় এবং জীবনের সমস্ত গুনাহ মাফ হয়। জীবনে একবার হলেও সালাতুত তাজবিহ নামাজ আদায় করবেন। 

সালাতুল তাসবিহ নামাজ নিয়ে জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন উত্তর

সালাতুত তাসবিহ নামাজ সুন্নত না নফল?

সালাতুত তাজবিহ হচ্ছে সুন্নত নামাজ। এই নামাজ পড়লে জীবনের সব গুনাহ মাফ হয়ে যায়। 

সালাতুল তাসবিহ নামাজ পড়লে কি লাভ?

এই নামাজ টি পড়লে ইচ্ছাকৃত ও অনিচ্ছাকৃত গুনাহ, সাগিরা, কাবিরা, গুপ্ত ও প্রকাশ্য, জীবনের সমস্ত গুনাহ মাফ হয়। 

সালাতুত তাসবিহ নামাজের সময় কখন?

এই নামাজ যে কোনো সময় পড়া যাবে। তবে রমজান মাসে পড়া বেশি উত্তম।

সালাতুল তাসবিহ নামাজ সর্বমোট কত রাকাত?

সালাতুত তাজবীহ নামাজ টি সর্বমোট ৪ রাকাত।

সালাতুল তাসবিহ নামাজে তাজবীহ পড়তে ভুলে গেলে কি করণীয়?

এই নামাজে কোনো রাকাতে তাজবীহ টি পড়তে ভুলে গেলে পরের রাকাতে যেখানে ভুলে গেছেন ওখানে তাজবিহ পড়ে পূরণ করে দিবেন।

পাশে থেকে কেউ বলে দিলে নামাজ হবে?

না’ এই নামাজ পড়ার সময় পাশে থেকে কেউ বলে দিলে নামাজ হবে না।

উপসংহার

আশা করি আপনাদের সালাতুল তাসবিহ নামাজের নিয়ম নিয়ত ও ফজিলত সম্পর্কে বিস্তারিত জানাতে পারছি। জীবনে একবার হলেও এই নামাজটি পড়বেন এই নামাজটা পড়লে আপনার জীবনের সমস্ত গুনাহ হবে। কোন কিছু না বুঝে থাকলে মন্তব্য করবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen + nine =

Scroll to Top